কেন হাই রিফ্রেশ রেটের মনিটর দরকার?

TUF-GAMING-VG32VQ

গেমিং লাইফের এমন একটা পর্যায় অনেকেরই আসে যখন একটি ১৪৪ হার্জের মনিটরের প্রয়োজন বোধ করেন। কিন্তু অনেকেই আছে আবার না বুঝেই ১৪৪ হার্জের মনিটর কিনে থাকেন। পরে দেখা যায় ১৪৪ হার্জ মনিটরে ১৪৪ হার্জ এনাবেল না করেই ৬০ হার্জেকে ১৪৪ হার্জ মনে করেন।

প্রথমেই জানা উচিত এই ১৪৪ হার্জের রিফ্রেশ রেটটা কি?
হার্জে পরিমাপ করা রিফ্রেশ রেট সাধারনত বুঝায় একটি মনিটর এক সেকেন্ডে কত পরিমাণে ফ্রেম দেখাতে সক্ষম। এর মানে হলো গেমে অতিরিক্ত ফ্রেমস দেখাতে পারে এই মনিটর। সোজা বাংলায় সাধারন ৬০ হার্জের একটি মনিটর এক সেকেন্ডে ৬০টি ছবি দেখাতে পারে অন্যদিকে ১৪৪ হার্জ অথবা ২৪০ হার্জ এক সেকেন্ডে যথাক্রমে ১৪৪ ফ্রেমস এবং ২৪০ ফ্রেমস দেখাতে সক্ষম।

এইসব হাই রিফ্রেশ রেটের মনিটরে বেশি ফ্রেমস দেখানোর জন্য অবশ্যই আপনার কম্পিউটারের ক্ষমতা যথেস্ট ভাল হতে হবে। বর্তমানে সব ধরনের মনিটর ৬০ হার্জের হয়ে থাকে কিন্তু বর্তমানে ১৪৪ হার্জ মনিটর দাম ধীরে ধীরে কমতে থাকায় গেমিং দুনিয়ায় হাই রিফ্রেশ রেটের মনিটরেরে জনপ্রিয়তা বাড়ছে।

হাই রিফ্রেশ রেট মনিটরের সুবিধা
হাই রিফ্রেশ রেট মনিটরের একটি সুবিধা হল বেশি পরিমাণ ফ্রেমরেট দেখানো সম্ভব এতে করে একটি মসৃণ ফ্রেমরেট এবং এটি আপনার রিয়্যাকশন টাইমে একটি প্রভাব ফেলতে সক্ষম। ৬০, ৭৫, ১৪৪, ১৬৫, ২৪০ হার্জের মধ্যে ২৪০ হার্জের মনিটরে সবচেয়ে বেশি মসৃণ ছবি দেখাতে সক্ষম। সোজা কথায় যত ফ্রেমস দেখবেন তত রেস্পন্সিভ গেমপ্লে এক্সপেরিয়েন্স হবে। এছাড়া হাই রিফ্রেশ রেট মনিটরে খুবই কম পরিমাণে মোশন ব্লার হয়ে থাকে যেটি চোখের জন্য সুবিধাজনক।

প্রতিযোগিতামুলক গেমগুলোতে প্রতিটি গেমার/ইস্পোর্ট প্লেয়ারই একটি ১৪৪ হার্জের মনিটরের প্রয়োজন বোধ করে থাকে যেখানে একজন প্লেয়ার বেশি ফ্রেমরেটের মাধ্যমে প্রতিটি মুহূর্তের সিদ্ধান্ত নিতে পারে। এতে করে প্লেয়ারের রিয়্যাকশন টাইম আরও ভালো হয়ে থাকে।

তবে এর মানে এই নয় যে, হাই রিফ্রেশ রেটের মনিটর আপনাকে ভালো গেমার করে তুলবে। এটি ক্ষেত্র বিষেশে ভিন্ন হতেই পারে কিন্তু হাই রিফ্রেশ রেট আপনার রিয়্যাকশন টাইমকে কমাতে সক্ষম।

হাই  রিফ্রেশ রেটের অসুবিধা
যেহেতু আগেই বলা হয়েছে বর্তমানে ১৪৪ হার্জের মনিটরের দাম কম হওয়ায় অনেকেই সাধারন মনিটরের বাজেট বাড়িয়ে ১৪৪ হার্জ মনিটর কিনছেন। কিন্তু বেশিরভাগ মনিটরে ব্যাবহার করা হয় টিএন প্যানেল অথবা লো-কোয়ালিটির ভিএ প্যানেল। এসব প্যানেলের মূল অসুবিধা হল কালার কোয়ালিটি তেমন ভালো হয়ে থাকে না এবং মনিটরের এংগেল শিফট হলে কালার শিফটও হতে থাকে। যদিও ভালো মানের ভিএ প্যানেলে এই ধরনের অসুবিধা কিছুটা কম হয়ে থাকে। তবে সর্বোচ্চ মানের ১৪৪ হার্জের পাশাপাশি ভাল মানের কালার কোয়ালিটি পেতে হলে আইপিএস একটি ভালো অপশন হতে পারে। কিন্তু আইপিএস ১৪৪ হার্জ মনিটরের দাম অপেক্ষাকৃত বেশি।

যদিও হাই রিফ্রেশ রেটের জন্য বেশিরভাগ গেমারই কালার নিয়ে তেমন ভেবে থাকেন না কিন্তু যখন ফটো বা ভিডিও এডিটের কাজ করে থাকেন তখন ভালো কালারের জন্য অসুবিধা হতে পারে। আইপিএস প্যানেলের তুলনায় টিএন প্যানেলের কালার খুবই ফ্যাকাশে দেখাবে তবে এই দুটির মাঝামাঝি অবস্থান করছে ভালো মানের ভিএ প্যানেল।

কিছু হাই রিফ্রেশ রেটের মনিটরের দামঃ গ্লোবাল ব্র্যান্ড প্রাইভেট লিমিটেড আসুস, এলজি এবং ফিলিপস মনিটরের পরিবেশক। এর মধ্যে এলজি, ফিলিপস এবং আসুসের হাই রিফ্রেশ রেটের মনিটর বাজারে আছে। এলজির Ultragear সিরিজ এবং আসুসের ROG, TUF এসব সিরিজের মধ্যে হাই রিফ্রেশ রেটের মনিটর বাজারে পাওয়া যাচ্ছে।

২০ থেকে ৩০ হাজার টাকার মধ্যেঃ LG 24GL600F-B, ASUS VG258q Gaming Monitor
৩০ থেকে ৪০ হাজার টাকার মধ্যেঃ ASUS VA326H Curved Gaming Monitor, ASUS VG278RQ Gaming Monitor(165Hz)
৪০ থেকে ৫০ হাজার টাকার মধ্যেঃ ASUS ROG Strix XG27VQ Curved Gaming monitor, ASUS VG278QR(1665Hz) , Philips 31.5” 328C7QJSG Curved Gaming Monitor
৫০ থেকে ৬০ হাজার টাকার মধ্যেঃ ASUS TUF Gaming VG27AQ (1440p 165Hz), ASUS TUF Gaming VG32VQ Curved
৬০ থেকে ৭০ হাজারের মধ্যেঃ LG 27GL850 , ASUS ROG Strix XG332VQR Curved (1440p)


শেষকথা, আসলেই কি আপনার ১৪৪ হার্জের মনিটর দরকার?
আপনি যদি ফটো বা ভিডিও এডিটের কাজ করে থাকেন সেক্ষেত্রে একটি হাই রিফ্রেশ রেটের মনিটর ক্রয় করাটা সুবিধাজনক হবে না। কিন্তু যদি আপনার মূল উদ্দেশ্য হয় গেমিং এবং একজন ভাল মানের ইস্পোর্টস প্লেয়ার হতে চান তাহলে হাই রিফ্রেশ রেটের মনিটর হতে পারে ভালো একটি সহায়ক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shop By Department